আউট ডোর
Eliminator III স্কোপ  রিভিউ

Eliminator III স্কোপ রিভিউ

 এর আগে স্কোপ সংক্রান্ত ধারণা আমার অন্য লেখায় আগেই দিয়েছি। সেটা পাবেন এখানে। এই স্কোপ সংক্রান্ত রিভিউ লিখবো বেশ কিছুদিন থেকেই ভাবছিলাম। তবে এত দাম দিয়ে স্কোপ কে কিনবে এ’দেশে? ধারণাটা চেঞ্জ হয়েছে অবশ্য। গত সপ্তাহে শুনলাম একজন লোক ৫০০০ ডলারের স্কোপ কিনেছে! মানুষের অঢেল টাকা থাকলে যা হয়। এত যাদের টাকা তারা সম্ভবত: বাংলা ব্লগ পড়েননা। টাকার সাথে কেন যেন ইংরেজীর একটা সম্পর্ক  আছে। খুব বড়লোকরা কেন যেন বাংলা বলতে চান না। বাংলা ছাড়তে হয় এমন যেন বড়লোক না হই! যাহোক, যে প্রসঙ্গে লিখছি, সেটাই শুরু করা যাক।

বারিস এলিমিনেটর থ্রি

সাধারনত: কোন স্নাইপারের ভাল রাইফেলের পাশাপাশি অন্য একটা জিনিষের প্রয়োজন হয়-তাহলো রেঞ্জ ফাইন্ডার। লং ডিসট্যান্সে টার্গেটে হিট করতে চাইলে রেঞ্জ ফাইন্ডার লাগবে। এরপর বিভিন্ন ক্যালকুলেশন, সাথে বাতাসের গতি ও কোন দিকে বইছে সেটা সম্পর্কে জানা অতীব প্রয়োজন। খুব ভাল হতো যদি এই ক্যালকুলেশনের ব্যাপারগুলো একটা যন্ত্রেই করা যেত। এই সমস্যার সমাধান আছে  বারিসের  এলিমিনেটর থ্রি স্কোপ এ। বিভিন্ন ম্যাগনিফিকেশনে তিনটা মডেল আছে।  চলুন দেখি এর নতুন  বৈশিষ্ট্যগুলো কি কি।

  • এতে খুবই উঁচু মানের লেন্স ব্যবহার করা হয়েছে যার স্থায়িত্ব আর ক্ল্যারিটি অত্যন্ত ভাল।
  • বিল্ট ইন রেঞ্জফাইন্ডার- রেঞ্জ ফাইন্ডার আলাদা করে কিনতে হবে না। এর রেঞ্জ ফাইন্ডারের ক্ষমতা ১২০০ গজ পর্যন্ত।  পরিমাপের বিষয় টা কাস্টোমাইজ করে মিটারেও দেখতে পারবেন।
  • X96 Reticle সিস্টেম যা শুধু বারিস এলিমিনেটরের জন্যে তৈরী। এই সিস্টেমের জন্যেই এই রিভিউ লিখতে বসেছি। এই সিস্টেমের জন্য মিলি সেকেন্ডে আপনার টার্গেটের দূরত্ব দেখিয়ে দেবে। শুধু কি তাই,  একটা ছোট লাইটেড ডট আপনাকে জানাবে ঠিক কোন ডট  ব্যবহার করলে নিশানা সঠিক হবে।
  • সংযুক্ত ইনক্লাইনোমিটার থাকায় আপনি পাহাড়ের উপরে থাকুন বা নিচে- দারুন অ্যাকুরেসী পাবেন।
  • ডাবল স্প্রিং সিস্টেমের জন্যে ঝাঁকুনি বা রিকয়েলের ফলে জিরো’ নষ্ট হয়না।
  • এর ব্যাটারী স্থায়িত্ব অনেক। একটি ব্যাটারীতে ৫০০০ বার বাটন পুশ করা যাবে এবং ডিটেইল তথ্য জানা যাবে।
  • প্যারালাক্স সেটিং ৫০ গজ থেকে অসীম পর্যন্ত।
  • বিল্ট ইন মাউন্টিং।

এই স্কোপ সম্পর্কে  নিচের ভিডিওটা দেখতে পারেন:

https://www.youtube.com/watch?v=LqFSsXdJS34

https://www.youtube.com/watch?v=eVXyUUu-4wc

প্রশ্নোত্তর পর্ব:

  • এটা কি রিম ফায়ার  ব্যবহার করা যায়? অবশ্যই যাবে। এক্ষেত্রে  এলিমিনেটর থ্রি, আইটেম নং-200119 শুধু সাপোর্ট করবে। এর মেমোরী আপডেট দিলে .22LR, .17HMR, .300BLK and 7.62×39 ব্যবহার করতে পারবেন।
  • সামনে কোন নেট বা কাঁচ জাতীয় কিছু থাকলে স্কোপ কাজ করবে? না। এটি হিসাব করতে ইনফ্রারেড বীম ব্যবহার করে। সামনে বাধা সৃষ্টি হলে হিসাব নিকাশ কাজ  করবে না।
  • কেন মাঝে মাঝে আমার স্কোপ কাজ করেনা? যেসব বস্তুর প্রতিফলন হয় যেমন কাঁচ, গাড়ী, সাদা ভালুক ইত্যাদিতে এর ক্ষমতা ৭৫০ গজ। কিন্তু যেগুলোতে প্রতিফলন হয়না সেগুলো যেমন, জীব জন্তু, গাছপালা, ঝোপঝাড়ে এর ক্ষমতা ১২০০ গজ পর্যন্ত কাজ করবে। তাছাড়া অন্য রেঞ্জ ফাইন্ডারের মত এতেও আবহাওয়া প্রভাব বিস্তার করে। ভারী বৃষ্টিপাত, তুষার, কুয়াশাতে এর কাজে ব্যাঘাত সৃষ্টি করতে পারে।
  • কোন রেইলে লাগানো যাবে? পিকাটিনি রেইল ওয়েভার রেইল।
  • ভাই, দাম কত? ৯০০-১২৮০ ইউএস ডলার।

সাজেশন

একটা ভাল এয়ারগানের সাথে একটা ভাল ব্র্যান্ডের স্কোপ অপরিহার্য। আমাকে দেশের প্রায় অনেক অঞ্চল থেকেই ”কোন স্কোপ ভাল হবে” প্রশ্ন করেন।  এয়ারগান ব্যবহারকারীদের জন্য Hawke Sport Optics Airmax 30 Side Focus বা এই জাতীয় মডেলগুলো আদর্শ । এর বেশ কিছু মডেল আছে। এগুলোর সংক্ষিপ্ত নাম AMX.  এর দাম খুব বেশি না হলেও কম বলা যায় না। যাদের টাকাটা সমস্যা না কিন্তু ভাল কিছু চাইছেন- তারা এটা নিশ্চিন্তে কিনতে পারেন। এর কিছু কমপ্যাক্ট মডেলও আছে।  লম্বা স্কোপ না চাইলে কমপ্যাক্ট মডেলগুলো কিনুন। যেমন AIRMAX 30 SF COMPACT 6-24×50 AMX IR

আমাদের দেশের প্রায় সব এক্সপার্টরাই হক এয়ারম্যাক্সের ভক্ত। পিসিপি হোক বা স্প্রিংগার-এই স্কোপই যথেষ্ঠ। চলুন দেখে নেওয়া যাক এর বৈশিষ্ট্য সমূহ।

  • প্যারালাক্স অ্যাডজাস্ট করার জন্য সাইড ফোকাস কন্ট্রোল।
  •  হেয়ারের পরিবর্তে গ্লাসের উপর লেজার দিয়ে ক্রস এনগ্রেভ করা থাকে।
  • খুবই টেকসই।
  • দূরত্ব ২০০ গজ। এর বেশি ‍এয়ারগানে প্রয়োজন হয় না।
  • ম্যাগনিফিকেশন ৮ থেকে ৩২ এক্স পর্যন্ত।
  • অবজেকটিভ লেন্স ৫০
  •  দাম ৪০,০০০/- টাকা।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

shares
Don`t copy text!